সোমবার, ০১-মার্চ ২০২১, ০৪:২৭ অপরাহ্ন

রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনে কথা রাখবেন তো মিয়ানমারের নতুন সরকার?

shershanews24.com

প্রকাশ : ১৮ ফেব্রুয়ারী, ২০২১ ১১:২৮ পূর্বাহ্ন

সাপ্তাহিক  শীর্ষকাগজের সৌজন্যে: মিয়ানমারে সেনা অভ্যুত্থানে অং সান সু চি সরকারকে উৎখাতের পর রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন নিয়ে বড় ধরনের অনিশ্চিয়তা তৈরি হয়েছে; তাতে সন্দেহ নেই। বাংলাদেশ সরকার এ নিয়ে প্রকাশ্যে কোনো মন্তব্য না করলেও নানাভাবে স্বীকার করে নিয়েছে, বর্তমান পরিস্থিতিতে প্রত্যাবাসন প্রক্রিয়া বেশ জটিল আকার ধারণ করেছে। যে কারণে চীনের ওপর নির্ভর করছে। তবে বাংলাদেশে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গারা সরাসরিই বলেছে, যে সেনাবাহিনী তাদেরকে দেশত্যাগে বাধ্য করেছে; সেই সেনাবাহিনী রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নেবে না বলেই তাদের বিশ্বাস। কোনোভাবেই তারা বিশ্বাস করতে চায় না- এতো অত্যাচার-নির্যাতনের পর আবার নিজেদের দেশে ফিরতে পারবে। মোট কথা অনিশ্চিত এক অন্ধকার ঘিরে ধরেছে কয়েক লাখ রোহিঙ্গার ভবিষ্যৎ।
এমন পরিস্থিতি শুধু বাংলাদেশে আশ্রয় নেওয়া রোহিঙ্গাদের নয়, মিয়ানমারে থাকা আরও প্রায় সাড়ে ৬ লাখ রোহিঙ্গাদের সামনে বড় বিপদ। সেই আশঙ্কা প্রকাশ করছে স্বয়ং জাতিসংঘ। সেনা অভ্যুত্থানের পরের দিনই সেই রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীকে নিয়ে সংস্থাটির মুখপাত্র স্টিফেন দুজারিকের শঙ্কা, রোহিঙ্গা অবস্থা আরও খারাপ হতে পারে!
রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন কিংবা মিয়ানমারে থাকা রোহিঙ্গাদের নিয়ে এমন শঙ্কার মধ্যে আশা দেখাচ্ছেন মিয়ানমারের সেনাপ্রধান তথা সামরিক নতুন সরকার প্রধান অং হ্লাইং। অভ্যুত্থানের ৮ দিন পর প্রথমবারের মতো টেলিভিশনে প্রকাশ্যে বক্তব্য রেখেছেন তিনি। বলেছেন, ‘মিয়ানমার থেকে বা¯‘চ্যুত ব্যক্তিদের ফিরিয়ে নেবে তারা।’ আমরাও প্রত্যাশা করি মিয়ানমারের নতুন সরকার তার কথা রাখবে, ফিরিয়ে নিবে বাংলাদেশে আশ্রিত রোহিঙ্গাদের।
তিনি এ কথা শুধু টেলিভিশনেই বলেননি, টুইটও করেছেন। সেখানে তিনি বাংলাদেশের সঙ্গে দ্বিপাক্ষিক চুক্তির কথা উল্লেখ করেছেন। তবে রোহিঙ্গা শব্দটি ব্যবহার করেননি মিয়ানমারের সর্বময় ক্ষমতাধর এই জেনারেল। শুধু বলেছেন, ‘আইডিপি ক্যাম্প থেকে অভ্যন্তরীণ বাস্তচ্যুত ব্যক্তিদের পুনর্বাসনের কাজ অবিলম্বে বাস্তবায়ন করা হবে।’
কৌশলে বলা তার এই বক্তব্য কতটা বাস্তব রূপ পাবে; তা সময়ই বলবে। এই মুহূর্তে আমরা কেউ বলতে চাই না- এটা শুধু কথার কথা। আবার ‘বা¯‘চ্যুত ব্যক্তি’ বা ‘রোহিঙ্গা’ শব্দটি তিনি ব্যবহার করলেন কি করলেন না; সেই বিতর্কও অপ্রয়োজনীয়। কেননা সারা বিশ্বের কাছে এটা পরিস্কার-বাংলাদেশে আশ্রয় নেওয়া রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠী মিয়ানমারের নাগরিক।
আমরা মনে করি, মিয়ানমার যত দ্রুত তার নাগরিকদের ফিরিয়ে নেবে; ততই প্রতিবেশী হিসেবে বাংলাদেশের আস্থা-বিশ্বাস ফিরে পাবে। আমরা চাই মিয়ানমার সুপ্রতিবেশী হিসেবে সেই তৎপরতা দেখাবে। আর বর্তমান পরিস্থিতিতে সেটা নির্ভর করছে নতুন সরকারের ওপর।
(সাপ্তাহিক শীর্ষকিাগজে  ১৫ ফেব্রুয়ারি ২০২১ প্রকাশিত)